খাগড়াছড়িতে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী কামাল হোসেন’র বিরুদ্ধে মামলা

0
117

খাগড়াছড়ি প্রতিবেদক :

খাগড়াছড়িতে জেলা পরিষদ আইনকে অবজ্ঞা করে মিথ্যাচার, গুজব ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করে অফিস দখল করতে আসা সেই জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী কামাল হোসেন’র বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। মামলা নং সি.আর ২০৮/১৯।

রোববার দুপুরের দিকে খাগড়াছড়ি কগনিজেন্স আদালতের বিচারক মো: মোরর্শেদুল আলমের আদালতে খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদ সদস্য ও জনস্বাস্থ্য বিভাগের আহবায়ক পার্থ ত্রিপুরা জুয়েল বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন।

দন্ডবিধির ১২০(খ)/৪১৭/১৬৬/৩৮৭/৫০৫ (খ)(গ)/৫০০/৫০৬ (২য় অংশ) ও ৩৪ ধারায় এ মামলায় কামাল হোসেন (৫০) ছাড়া ও জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের চট্টগ্রাম সার্কেলের তত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো: জহির উদ্দিন দেওয়ান (৫১) আসামী করা হয়।

মামলা সূত্রে জানা যায়, পার্বত্য চুক্তির আলোকে জনস্বাস্থ্য অধিদপ্তর খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদের হস্থান্তরিত বিভাগ। জেলা পরিষদের আইন ১৯৮৯ এর ২৩(খ) ধারার অধিনস্থ এ প্রতিষ্ঠানে বর্তমান জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী মো: সোহরাব হোসেন দায়িত্বরত থাকা অবস্থায় কামাল হোসেনকে বদলী ও পদায়নের ফলে প্রশাসনিক জটিলতা সৃষ্টি হয়। এর ধারাবাহিকতায় গত ৭ আগস্ট সকাল ১১ টায় জেলা পরিষদের কোন যোগদান পত্র ছাড়া তিনি অফিস দখলের চেষ্টার অভিযোগ করা হয় মামলায়।

এ সময় তিনি গুজব, অপপ্রচার চালিয়ে পার্বত্য জেলা পরিষদকে অবজ্ঞা করে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য ও জনস্বাস্থ্য বিভাগের আহবায়ক পার্থ ত্রিপুরা জুয়েল এর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয় বলে উল্লেখ করা হয়।

গত ১১ জুলাই ২০১৯ খাগড়াছড়ি চলতি জনস্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পদায়ন ও বদলীর আদেশ বাতিলের জন্য ২৫ জুলাই স্থানীয় সরকার বিভাগকে জেলা পরিষদ অনুরোধ জানান। কিন্তু জেলা পরিষদকে অবজ্ঞা করে বে-আইনি ভাবে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের নির্দেশনার অপেক্ষা না করে মো. কামাল হোসেন সন্ত্রাসী কায়দায় যোগদানের চেষ্টা করে বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়।

এ বিষয়ে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য পার্থ ত্রিপুরা জুয়েল বলেন, কামাল হোসেন মিথ্যা ভিত্তিহীন ও গুজব ছড়িয়ে খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালিয়েছে। এ ঘটনায় জন্য তাকে আইনি পন্থায় বিচারের আওতায় আনতে জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে মামলা করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।